“খুনি” | মারুফ আর রুসাফী

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

অক্টোবর ১২ ২০১৮, ১০:০৪

কুয়াশা ঢাকা এই নির্জণ আঁধারে আবার ঝিঁঝিঁ পোকার ঝিঁ ঝিঁ শব্দ ভেসে আসছে।কি অদ্ভুত রাত!
আমাদের কাছে অদ্ভুত মনে হলেও জামানের কাছে তেমন কিছু মনে হয় নি!
জামান মৃত জেরির এক হাত ধরে টেনে টেনে ধীরে ধীরে সামনে এগুচ্ছে!জেরির গলা থেকে এখনও তাঁজা রক্তগুলো টপ টপ করে ঝরে পড়ছে।এই রক্ত দেখার মত জগতে আজ কেউ নেই!আঁধারের রক্ত কুয়াশা ঢাকা আঁধারের সাথে মিশে যায়!জামান এই কুয়াশা ঢাকা আঁধারে মরা লাশ নিয়ে টিপ টিপ পায়ে হেঁটে চলছে।
কুয়াশা মুড়িয়ে বন-জঙ্গল পেরিয়ে নীচু পথ ধরেছে জামান।শীতের চাদরটা দিয়ে আবারও ভালো করে কান-মুখ ঢেকে ধীরে ধীরে সামনে এগুচ্ছে।
শীতে ঘেরা আঁধারে মরা লাশ নিয়ে এই নির্জণ পথে সামনে এগুতে খুব ভয় হচ্ছে জামানের!তবুও সামনে এগুচ্ছে।কারণ,সে চায় না পৃথিবীর কেউ জেনে যাক যে,সে খুনি!সে চায় এই রহস্যময় পৃথিবীতে আরো কিছুটা দিন বেঁচে থাকতে!
জামান,এগুতে এগুতে চলে এসেছে সেই হাজার বছর পুরোনো শ্মশানে!এখানে এখনও একটি লাশ দাউ দাউ করে জ্বলছে!হয়ত সন্ধ্যা রাতে জ্বালিয়ে দিয়ে গেছে!জামান চারপাশটা একবার ভালো করে দেখে,জেরির মৃত দেহটা ছিটকে ফেলে দেয় এই আগুনে।জামান বাম হাতে রক্তমাখা ছুরিটা নিয়ে আবারও সেই রহস্যময় পথে টিপটিপ পায়ে হেটে চলছে!

 

চলবে………..