নিরাপদ-বিষমুক্ত আম উৎপাদন, বিপণন ও বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রস্তুতিমূলক সভা 

Raja Babu

Raja Babu

মে ১৭ ২০২২, ১৮:১৪

বদিউজ্জামান রাজাবাবু, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ গ্রীষ্মকালের সুমিষ্ট ও লোভনীয় ফল আম বিপণন ও বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে এক
প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জে।
মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসন
চাঁপাইনবাবগঞ্জের আয়োজনে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এই
প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় নিরাপদ ও বিষমুক্ত আম উৎপাদন, বিপণন ও বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে
অনুষ্ঠিত প্রস্তুতিমূলক সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক একেএম গালিভ
খান। এ সময় তিনি অন্যান্য জেলার মতো চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাতেও আম
ক্যালেন্ডার করা হবে কিনা সে বিষয়ে সভায় উপস্থিত আম চাষী ও ব্যবসায়ীদের
বিভিন্ন মতামত শুনেন। পরে কন্ঠ ভোটে ক্যালেন্ডার না করার পক্ষে জোড় দাবীর
প্রেক্ষিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার জন্য আম পাড়ার কোন নির্দিষ্ট সময় সূচী
নির্ধারণ থেকে বিরত থাকেন প্রশাসন।

তবে এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক একেএম গালিভ খান বলেন, জেলার আম চাষী,
ব্যবসায়ী, আড়ৎদার ও কৃষি কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে চলতি বছর আম বাজারজাত
করণের জন্য কোন সময়সীমা থাকবেনা বলে সিন্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে অপরিপক্ক
আম নয়, গাছে আম পাকলে তবেই তা বাজারজাত করতে পারবেন এর সাথে সংশ্লিষ্টরা।
তবে কেউ যদি অপরিপক্ক আম বাজারজাত করে, তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা
নেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারী দেয়া হয় প্রস্তুতিমূলক সভায়। এছাড়াও নিরাপদ ও
বিষমুক্ত আম উৎপাদনে মনিটরিং কমিটি ও ভ্রাম্যমাণ আদালত সব সময় সক্রিয়
থাকবে বলে জানান জেলা প্রশাসক। আর তাই চাঁপাইনবাবগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী এবং
স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন আমের ঐতিহ্য ও সুনাম বজায় রাখতে জেলা
প্রশাসক বিষমুক্ত ও নিরাপদ আম উৎপাদন ও বিপণনে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন
তিনি।

এ সময় সভায় উপস্থিত অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. জাকিউল ইসলাম
বলেন, আমবাগানে অতিরিক্ত কিটনাশক প্রয়োগ থেকে প্রতিটি বাগান মালিকদের
বিরত থাকতে হবে। সে লক্ষ্যে প্রতিটি বাগান মালিকদের লকবুক ব্যবহার করতে
নির্দেশনা দেন তিনি। এছাড়া এবার করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকায়
সারাদেশে আম পরিবহন ব্যবস্থাও স্বাভাবিক থাকবে এবং রেলপথে ও কুরিয়ার
সার্ভিসের মাধ্যমে আম পাঠানোর সব ধরণের সুযোগ থাকবে। তবে ৪৫/৫০ কেজিতে আম
ক্রয়-বিক্রয় না করে আমের বিক্রয় মূল্য কমিয়ে ৪০ কেজিতে মন হিসেবে আম
বিক্রয়ের জন্য ব্যবসায়ীদের অনুরোধ করেন তিনি।

প্রস্তুতিমূলক সভায় অন্যান্যের মধ্যে বণিক সমিতির পরিচালক মো. শহিদুল
ইসলাম, আম রপ্তানীকারক মো. আহসান হাবিব, মো. ইসমাইল খান, নিরাপদ খাদ্য
কর্তৃপক্ষ, রেল কর্তৃপক্ষ, কৃষি কর্মকর্তা, আম বিজ্ঞানী, আম বাগান মালিক,
আম ব্যবসায়ী ও চাষিসহ এই পেশার সাথে সংশ্লিষ্ট উদ্দ্যোক্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।