সুনামগঞ্জে সিএনজি স্ট্যাণ্ড স্থাপনকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষ নিহত ১

একুশে জার্নাল ডটকম

একুশে জার্নাল ডটকম

জুন ২০ ২০১৯, ১৯:৩৭

একুশে জার্নাল ডেস্ক

সুনামগঞ্জের পাগলায় সিএনজি স্ট্যাণ্ড স্থাপন করে সড়ক দখল করা নিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষে এক শিক্ষার্থী নিহত এবং উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ৯ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে এই সংঘর্ষ হয়। ফের সংঘর্ষের আশংকায় পাগলাবাজারে বিপূল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পাগলা বাজারে সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়কের একপাশে সিএনজি স্ট্যান্ড করায় পধচারীদের চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। বৃহস্পতিবার রায়পুর গ্রামের সেইচা মিয়ার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম মারা গেলে ওই পথ দিয়ে পাগলা হাইস্কুল মাঠে মরদেহ নিয়ে যাওয়ার জন্য রওয়ানা দেন তার স্বজনরা। এসময় রায়পুর গ্রামের মরদেহ বহনকারীরা সিএনজি চালকদের চলাচলের পথ থেকে সিএনজি সরানোর জন্য বলেন। এই নিয়ে দুই পক্ষে কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে দুই পক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

রায়পুর গ্রামের লোকজন মরদেহ স্কুল মাঠে রেখে এসে সংঘর্ষে জড়ায়। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে পাগলা স্কুল এন্ড কলেজের ১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থী শাহনূর মিয়া বাড়ি ফেরার সময় সিএনজি স্ট্যান্ডের সামনে আসলে প্রতিপক্ষের লোকজন রামদা দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপায়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় ওই স্কুল শিক্ষার্থী। এরপর তিন দফা সংঘর্ষে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ১৫ জন আহত হন।

আহতদের মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশংকাজনক। এরা হলেন- কান্দিগাঁওয়ের হাফিজুর (৩৮) এবং  রায়পুরের ছোটন মিয় (২০)। তাদেরকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্য আহতদের সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ও কৈতক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশিদ জানান, সিএনজি চালক ও শ্রমিকদের সঙ্গে রায়পুর গ্রামের একটি পক্ষের সংঘর্ষে ১ জন  নিহত এবং কয়েকজন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।