শ্রমিকদের ন্যুনতম মজুরি বৃদ্ধি ও ঝুঁকিমুক্ত কর্মক্ষেত্র অবিলম্বে নিশ্চিত করতে হবে: – শেখ গোলাম আসগর

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

মে ০১ ২০১৯, ১৫:১৯

 

একুশে জার্নাল ডেস্ক; খেলাফত মজলিস যুগ্ম মহাসচিব শেখ গোলাম আসগর বলেছেন, মেহনতি মানুষদের অধিকার আদায়ে ইসলাম যে বিধানাবলী দিয়েছে তা বাস্তবায়ন না করার কারণে আজ কর্মক্ষেত্রে বৈষম্য সৃষ্টি হয়েছে। শ্রমিক-মালিকদের সৌহার্দ্যের সম্পর্ক কখনো কখনো রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রূপ ধারণ করছে। অথচ মালিক-শ্রমিক হচ্ছে একে অপরের পরিপূরক। শ্রমিকদের মজুরি বকেয়া রাখাতো দূরের কথা ইসলাম বলেছে তাঁর ঘাম মাটিতে ঝরে পড়ার আগেই মজুরি পরিশোধ করতে হবে। অথচ শ্রমিকদের জীবন ধারণের ন্যুনতম মজুরি কাঠামো সরকারের গড়িমসির কারণে এখনও পর্যন্ত বাস্তবায়িত হয়নি। মূল বেতন ন্যুনতম ১০ হাজার টাকা ধার্য্য করে নতুন মজুরি কাঠামো গঠন এবং অবিলম্বে তা বাস্তবায়ন করতে হবে। সকল বকেয়া বেতন ঈদের আগেই পরিশোধ করতে হবে। শ্রমিকদের কর্মক্ষেত্রের নিরাপত্তা ঝুঁকি হ্রাস এবং দূর্ঘটনায় উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে হবে।’

তিনি প্রবাসী শ্রমিকদের যথাযথ স্বার্থ রক্ষায় ব্যর্থতার জন্য সরকারের কঠোর সমালোচনা করেন এবং সামনে রমজান মাসে গৃহকর্মীসহ সকল পর্যায়ের শ্রমিকদের কর্মঘণ্টা হ্রাস করা ও ভারি কাজ চাপিয়ে না দেয়ার জন্য সকলের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

জনাব শেখ গোলাম আসগর আজ মহান মে দিবস উপলক্ষে শ্রমিক মজলিস ঢাকা মহানগরী শাখার উদ্যোগে সকাল ১০টায় বিজয়নগর মোড়ে আয়োজিত এক শ্রমিক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। শ্রমিক মজলিস ঢাকা মহানগরী সভাপতি অধ্যাপক সিদ্দিকুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত র‌্যালীপূর্বক সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন খেলাফত মজলিস যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, শ্রমিক মজলিস কেন্দ্রীয় সভাপতি আলহাজ্ব নুর হোসাইন। বক্তব্য রাখেন খেলাফত মজলিস ঢাকা মহানগরী সহসভাপতি জহিরুল ইসলাম, মাওলানা শরীফুল ইসলাম, শ্রমিক মজলিস সেক্রেটারি আবুল কালাম, অধ্যাপক ইয়াকুব আলী তালুকদার, তাওহীদুর রহমান রাজু, আমীর আলী হাওলাদার, ঢাকা মহানগরী সেক্রেটারি শাহীদুল মুনির প্রমুখ।

সমাবেশ শেষে শ্রমিকদের বিভিন্ন অধিকার ও দাবি সম্বলিত রঙবেরঙের ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বিজয়নগর ও পল্টন এলাকা প্রদক্ষিণ করে।