মাধবপুরে নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধি, হতাশায় ক্রেতারা

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

এপ্রিল ৩০ ২০২০, ২১:৫১

কাউসার আহমদ, মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি:
মাধবপুরের আওয়াতাভুক্ত বিভিন্ন বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে চরম হতাশায় জনসাধারণ মানুষ।

একদিকে করোনা আতংক অন্য দিকে চলছে রমজান মাস। এরই মধ্যে দিন দিন বেরেই চলছে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম। হতাশা যেন পিছু ছাড়ছে না সাধারণ মানুষের। গত সপ্তাহে ১০দিনের ভিতরে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়েছে। মাধবপুর বাজারসহ গ্রাম অঞ্চলের বাজারগুলো ঘুরে দেখা গেছে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়েছে অনেক।

বৃহস্পতিবার (৩০এপ্রিল)সকালে স্বরজমিনে গিয়ে দেখা যায়-৪০টাকা কেজির পেঁয়াজ ৫০ থেকে ৫৫টাকা, ২০টাকা কেজি শসা ৪০থেকে ৫০টাকা, ডাল কেজিতে বেড়েছে ১০ থেকে ১৫টাকা, ১৪০ টাকার আদা ৩৫০ টাকায় বিক্রি করা হয়। এছাড়া কাঁচা বাজারেও পণ্যের দাম আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। ১৮ টাকার আলু ২৫থেকে ৩০টাকা, টমেটো,ঢেড়ঁশসহ সব সবজি কেজিতে ১০থেকে ১৫টাকা বেড়েছে। রমজান মাস হওয়ায় ৫০টাকার মুড়ি বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০টাকায়, মুদি দোকান গুলোতে ঘুরে দেখা যায়, ইফতার সামগ্রীর দামও বেড়েছে। ৬৫ টাকার খশারী ডাল ১০০ টাকা, ৮০ টাকার বশন ১২০ টাকা বিক্রি করা হচ্ছে।চালের বাজার অসহনীয় পর্যায়ে।

বাজারে আসা একাধিক ব্যক্তি একুশে জার্নালকে জানান-বাজারে নিত্য পণ্যের দাম বেড়েছে। যথাযথ মনিটরিং অব্যস্থা না থাকায় অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট গুলো পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।

অনেক ক্রেতারা জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে মানুষের দিন কাটছে কষ্টে। তার উপর আবার দাম বৃদ্ধি যেন অসহনীয়।

একাধিক মুদি ব্যবসায়ীর কাছে দাম বৃদ্ধি কথা জানতে চাইলে তারা জানান নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য বেশি দামে ক্রয় করে আনতে হয়। এছাড়া করোনা ভাইরাসের কারণে পণ্য পরিবহণ খরচসহ অন্যান্য খাতেও ব্যয় বেড়েছে। তাই পণ্যের দাম কিছুটা বেড়েছে। খুচরা দোকানদারদের অভিযোগ- আড়তদাররা ও পাইকারি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে দাম বেশি দিয়ে মাল কিনতে হচ্ছে।

ভুক্তভোগিরা জানান, মাঝে মধ্যে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করলেও আবার ঠিক সেই বেশি মূল্যেই বিক্রি করে। সবসময় নজরদারি ও নিয়মিত মনিটরিং প্রয়োজন। এছাড়া অধিক মুনাফাখোর বাজার নিয়ন্ত্রণকারী সিন্ডিকেটদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা প্রয়োজন।