নারায়ণগঞ্জে ৩২ মরদেহের কাফন-দাফন ও সৎকারে ‘এহসান পরিবার’

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

মে ১০ ২০২০, ০০:৩০

নিজস্ব প্রতিবেদক: নারায়ণগঞ্জে করোনা পরিস্থিতিতে কেউ লাশ ধরছে না। ফলে দাফন-কাফন নিয়ে মহাবিপদে পড়ে যায় সংশ্লিষ্ট পরিবার। এমন বিপর্যয়কর সময়ে লাশের গোসল, জানাযা দাফন-কাফনে এগিয়ে এলেন কিছু লোক। এসেই মৃতের পরিবারকে বললেন, “আমাদেরকে লাশ বুঝিয়ে দিন। হোক সে করোনা রোগী বা করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত। গোসল থেকে শুরু করে জানাযা, কাফন-দাফন সব আমরা করে দেব। কোনো বিনিময় দিতে চাইলে আমরা নেই না। বিনিময় আমরা আল্লাহর কাছ থেকে নিয়ে নেব। এভাবেই ‘এহসান পরিবার’ নামের একটি অরাজনৈতিক সংগঠন করোনা পরিস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জে এ পর্যন্ত ৩২ টি লাশ দাফন করেছে। এর মধ্যে একজন হিন্দু ব্যক্তির সৎকারও করেছেন সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবীরা।

তারা বলেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তিও সংক্রমিত হওয়ার ভয়ে ঘনিষ্ঠ স্বজনরাও পিছিয়ে যান। কিন্তু আল্লাহর রহমতে, আমরা ৩২ টি লাশ দাফন ও অন্যান্য কাজ করলেও কেউ অসুস্থ হইনি। আমরা সবাই ভালো আছি।

ইতোমধ্যে “এহসানপরিবার” নামে একটি ফেসবুক পেজ জেলায় ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবীরা করোনার প্রথম থেকেই শহরে ভাসমানদের রান্না করা খাবার বিতরণ, দুস্থ ও গরিবদের মধ্যে আর্থিক অনুদান ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণসহ বিনামূল্যে শিশুখাদ্য পৌছে দিয়ে আসছে, যা এখনো চলমান। তাদের ফেসবুকে দেখা যায়, মানুষের কল্যাণে নানা স্বেচ্ছা কর্মের ভিডিওফুটেজ ও ছবি।

সংগঠনের মুখপাত্র বিশিষ্ট মুবাল্লিগ ও ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন জানান, নারায়ণগঞ্জে করোনা পরিস্থিতির প্রথম দিকে মার্চ মাসে “এহসান পরিবার” নামে একটি স্বেচ্ছসেবী সংগঠন করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় গঠিত হয়। আমরা প্রায় ১১ দিন ধরে জেলায় ভাসমানদের মধ্যে প্রতিদিন ৩ শ’ প্যাকেট রান্না করা খাবার বিতরণ করেছি। আমরা নানা সংগঠনের পেশাজীবি ও ব্যবসায়ীগন নিজেরাই অুনদান দিয়ে সংগঠনের কার্যক্রম শুরু করি। এরই মধ্যে জেলায় করোনা উপসর্গ ও আক্রান্ত হয়ে মৃতের ঘটনা বাড়তে থাকে। তখন আমরা জেলার ওলামায়ে কেরামের পরামর্শ ও সহযোগিতায় বিনা পারিশ্রমিকে লাশের সকল কর্ম সম্পাদন করার সিদ্ধান্ত নেই। সেই ধারাবাহিকতায় শনিবার ৯ মে প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পুরো জেলায় জেলা ও থানা পর্যায়ে গঠিত কমিটির মাধ্যমে এহসান পরিবারের সদস্যরা একজন হিন্দু ধর্মাবলম্বী সহ ৩২ টি লাশের কাফন-দাফন ও সৎকার করেছে।