কুমিল্লায় স্কুলছাত্রী ধর্ষণের প্রতিবাদ ও ধর্ষকের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

ফেব্রুয়ারি ০৪ ২০১৯, ০৬:১১

শাহীন বিন শফিক, কুমিল্লা: কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার মুন্সীরহাট ইউপির ছাতিয়ানী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করায় ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা।

সোমবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় ছাতীয়ানি উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
এতে উপস্থিত ছিল ছাতীয়ানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ছাতীয়ানি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির সদস্য ও আবুল খায়ের মজুমদার, মুন্সীরহাট ইউপির ছাত্রলীগ সভাপতি মাসুদ রানা, আলমগীর হোসেন, আসিফ ইকবাল, মওদুদ আহাম্মদ মজুমদার, আলী আক্কাস মজুমদার, আব্দুল ওয়াদুদ মজুমদার, হেলাল মেল্লা প্রমূখ।

মামলা ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, গত ২০ জানুয়ারি ছাতিয়ানী গ্রামের এক চা দোকানি তার দুই মেয়েকে নিজের চায়ের দোকানে রেখে স্ত্রীসহ স্মার্টকার্ড নিতে ইউনিয়ন পরিষদে যায়।

তারা স্মার্টকার্ড নিয়ে দোকানে ফিরলে দুই মেয়ে বাড়িতে চলে যায়। রাত আটটার সময় বাকি হিসেব লেখার জন্য দুই মেয়ে আবারও দোকানে আসার পথে পূর্ব থেকে ওঁৎপেতে থাকা পাশের বাড়ির মৃত ছিদ্দিকুর রহমান পন্ডিতের ছেলে এয়াছিন পন্ডিত ওই কিশোরীকে (অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী) তুলে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

এ সময় ছোট মেয়ে চিৎকার দিলে লোকজন এসে ধর্ষিত মেয়েকে ঘটনাস্থলে পায়নি। রক্তাক্ত অবস্থায় ধর্ষিতাকে এয়াছিন পন্ডিতের সহযোগি আলমগীর তার বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখে।

ঘটনাটি জেনে এয়াছিন পন্ডিতের ভাই মাসুদ পন্ডিত গ্রামবাসীর সামনে তার হাতে থাকা লাইট দিয়ে ধর্ষিতাকে মারধর করে। মাসুদ পন্ডিত হুমকি দেয়-বিষয়টি সমাজে কিংবা থানায় জানাজানি হলে ধর্ষিতার পরিবারের সকলকে হত্যা করা হবে।

এ ঘটনায় ২৪ জানুয়ারি এয়াছিন পন্ডিত, মাসুদ পন্ডিত ও আলমগীরকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন মেয়েটির মা।