করোনাকে পুঁজি করে সিএনজি অটোরিকশা চালকদের ‘ডাকাতি’

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

আগস্ট ১০ ২০২০, ১৩:৪১

আহমদ মালিক, ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি: সাদিপুর থেকে থেকে সিএনজি অটোরিকশায় উঠেছেন মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ নামের এক যাত্রী । যাবেন গোয়ালাবাজার । অটোরিকশা থেকে নেমে নায্য ভাড়া ২০ টাকা দিতেই থেঁতে উঠেন চালক। তার দাবি ৪০ টাকা। ৪০ টাকা কেন জানতে চাইলে যাত্রীকে চালক বলেন, এত কথা বলতে পারবো না। ভাড়া ৪০ টাকাই।

এসময় যাত্রী বলেন, করোনাকালে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ৩ জন নিয়ে আসলে আপনি ৩০ টাকা করে ভাড়া নেওয়ার কথা। কিন্তু আপনি তো যাত্রী পাঁচজনই নিয়ে এসেছেন। তাই ভাড়া ৪০ টাকা নয়, ২০ টাকাই নেবেন আপনি। ৪০ টাকা নেওয়া অন্যায় হবে। এ কথা বলতেই যাত্রীর দিকে মারমুখো হয়ে পড়েন চালক। পরে মান-ইজ্জতের ভয়ে তিনি ওই চালককে ৪০ টাকা দিয়ে আসতে বাধ্য হন।

শুধু সাদিপুর থেকে থেকে গোয়ালাবাজার পর্যন্ত আর যাত্রী মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ নন, সিলেটের প্রায় সব রাস্তায়ই এভাবে প্রতিদিন মোহাম্মদ সাইফুল্লাহর মতো অসংখ্য যাত্রী সিএনজি অটোরিকশা চালকদের ‘ডাকাতি’র শিকার হচ্ছেন। কিন্তু তাদের লাগাম টেনে ধরার যেন কেউ নেই।

সিলেটসহ সারা দেশে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে গত ২৬ মার্চ সব ধরণের গণপরিবহন বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। পরে ৩১ মে থেকে সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চলাচলের আদেশ দেয়া হয়। ওই সময় করোনাভাইরাস ঠেকাতে সিলেটসহ সারা দেশে গণপরিবহনে যাত্রী কম বহন এবং যাত্রীপ্রতি ৬০% ভাড়া বাড়ানোর নির্দেশও দেয় সরকার।

কিন্তু সরকারের সেই নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সিলেটে সিএনজি অটোরিকশা চালকরা কোনো স্থানে যাত্রীদের জিম্মি করে ১০০% আর কোনো স্থানে যাত্রী কম না নিয়েই ৬০% ভাড়া আদায় করছেন। তাদের দাবি অনুযায়ী ভাড়া না দিলে অনেক সময় যাত্রীদের হেনস্তাও করছেন চালকরা। যাত্রীরা মান-ইজ্জতের ভয়ে চালকদের অন্যায় দাবি মেনে বাড়তি টাকা দিয়েই রেহাই পাচ্ছেন তাদের হাত থেকে।

বিশেষ করে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের গোয়ালাবাজার টু বালাগঞ্জ , গোয়ালাবাজার টু শেরপুর,গোয়ালাবাজার টু কালনিচর, গোয়ালাবাজার টু উমরপুর,গোয়ালাবাজার টু হাজীপুর,গোয়ালাবাজার টু দয়ামীর,গোয়ালাবাজার টু বুরুঙ্গা এসব সড়কে অটোরিকশা চালকরা বেশি নৈরাজ্য চালাচ্ছেন।

এ লাইনের যাত্রীদের অভিযোগ, সরকারি নির্দেশনা চালকরা মানচেন না, যাত্রীদের জিম্মি করে তারা প্রতিজনের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে নেন। প্রতিবাদ করলেই চালকরা একজোট হয়ে মারমুখো হন যাত্রীর দিকে ।

সিলেটজুড়ে সিএনজি অটোরিকশা চালকদের এমন হয়রানি আর নৈরাজ্যের প্রতিকার চেয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের আহবান জানিয়েছেন যাত্রীসাধারণ।