আবারো আন্দোলনে রাবি মাস্টাররোল কর্মচারীরা

একুশে জার্নাল ডটকম

একুশে জার্নাল ডটকম

মার্চ ১০ ২০২০, ১৮:৪৩

রাবি প্রতিনিধি:

চাকরি স্থায়ীকরনের দাবিতে মৌন মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দৈনিক মজুরী ভিত্তিতে বেতনপ্রাপ্ত মাস্টাররোল কর্মচারীরা। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বুদ্ধিজীবী চত্বরের সামনে থেকে মাস্টাররোল কর্মচারী ঐক্য পরিষদ ব্যানারে এই মিছিল বের হয়।

ক্যাম্পাসের প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ শেষে সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে আন্দোলনকারীরা আধা ঘন্টার মত অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। এসময় প্রায় শতাধিক কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।

অবস্থান কর্মসূচিতে মাস্টাররোল কর্মচারী ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক ও শহীদ হবিবুর রহমান হলের কর্মচারী মাসুদুর রহমান বলেন, আমরা ১৯৯৬ থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মচারীরা দক্ষতার সাথে কাজ করে আসছি। এই দীর্ঘ সময়ে চাকরির পর প্রায় সবাই অন্য সরকারি চাকরিতে আবেদনের বয়সের যোগ্যতাও হারিয়েছেন। আমাদের দৈনন্দিন জীবন দুঃসহ হয়ে উঠেছে। ভিটে মাটি হারিয়ে ঋণগ্রস্থ হয়েছেন অনেকেই। কিন্তু আমাদের চাকরি স্থায়ী হয়নি। বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত আমাদের কর্মসূচি চলবে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে দৈনিক মজুরীর ভিত্তিতে ২৮০ জন কর্মচারী চাকরিরত রয়েছেন। চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে গত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট বারবার চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি জানালেও বিষয়টির নিয়ে কোন সুরাহা হয়নি।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে কর্মচারীরা বলেন, তাদের জন্য অর্থ বরাদ্দ হয়ে থাকলেও বিমাতাসূলভ আচরণ করছে প্রশাসন। রাজনৈতিক প্রভাব, তদবিরের কারণে এবং প্রশাসনের সদিচ্ছার অভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই যুগের বেশি সময় ধরে কর্মরত প্রায় ২৮০ জন মাস্টাররোল কর্মচারির চাকরি স্থায়ী হচ্ছেনা। এমনকি আন্দোলনের সময় বিশ^বিদ্যালয়য়ের প্রক্টর আমাদের আন্দোলনে বাধা প্রদান করেছেন।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, অভিযোগটি অসত্য। আমি তাদেরকে অনুরোধ করেছিলাম যে প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান না নিয়ে যেন তারা অন্য জায়গাতে অবস্থান নেন।

প্রসঙ্গত, চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে গত ২৬ জানুয়ারি থেকে মাস্টাররোল কর্মচারী ঐক্য পরিষদ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে। এছাড়া প্রশাসন ও ইউজিসি বরাবর স্মারকলিপি দিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন তারা।