চট্টগ্রামে আল ওয়াক্বিয়ার উদ্যোগে হজ্ব প্রশিক্ষণ কর্মশালা সম্পন্ন

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

জুলাই ২৩ ২০১৯, ২২:১২

চট্টগ্রামে আল ওয়াক্বিয়া হজ্ব কাফেলার তত্ত্বাবধানে ২০১৯ সালের হজ্ব গমনার্থীদের নিয়ে “হজ্ব প্রশিক্ষণ কর্মশালা” আজ ২৩ জুলাই সকাল ১১টায় নগরীর চকবাজারস্থ হোটেল সাম্পান এ আল ওয়াক্বিয়া ট্রাভেলস এন্ড ট্যুর এর সত্ত্বাধিকারী আলহাজ্ব মাওলানা ইসমাইল কাউসারের সভাপিতত্বে অনুষ্টিত হয়।

 

কর্মশালায় প্রধান অতিথি এবং প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জামিয়া ইসলামিয়া পটিয়া’র মুহাদ্দিস, ইসলামী আইন বিশারদ আল্লামা মুফতি শামসুদ্দীন জিয়া।

এতে তিনি হজ্বের বিভিন্ন বিধানাবলী, করণীয় ও বর্জনীয় বিষয়ে হজ্ব গমনেচ্ছুদের মাঝে দীর্ঘ সময় প্রশিক্ষণ প্রদান করেন।

আল্লামা শামসুদ্দীন জিয়া বলেন, হজ্বে মবরুর পেতে হলে তা এখান থেকে সাথে করে নিয়ে যেতে হবে। অর্থাৎ মা-বাবাকে কষ্ট দিয়ে থাকলে ক্ষমা চেয়ে নিতে হবে। কারো পাওনা থাকলে তা আদায় করে দিতে হবে। কারো মনে কষ্ট দিলে তার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিতে হবে। তবেই মক্কায় গিয়ে হজ্বে মবরুর পাওয়া যাবে।

আল ওয়াক্বিয়া ট্রাভেলস এর নির্বাহি পরিচালক মাওলানা সানাউল্লাহ গণী এর সঞ্চালনায় অনুষ্টানের শুরুতে কুরআন তেলাওয়াত করেন

আলোচনা করেন, কক্সবাজার বাইতুর রহমান জামে মসজিদের খতিব মাওলানা কারী আতাউল্লাহ গণী ও ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশন করেন সঙ্গীত শিল্পী মাওলানা আসহাব উদ্দীন আল আজাদ।

এতে অন্যান্যদের মাঝে প্রশিক্ষণমূলক বক্তব্য প্রদান করেন জামিয়া শুলকবহর এর মুহাদ্দিস ও জামেয়ার জামে মসজিদের খতিব মুফতি মুহাম্মদ তৈয়ব, জামিয়া আশরাফিয়া ঝাপুয়া মহেশখালীর মুহাদ্দিস মাওলানা মুফতি শামসুল আলম।

প্রশিক্ষণ শেষে হাজ্বযাত্রীদের মধ্যে আল ওয়াক্বিয়া ট্রাভেলস এন্ড ট্যুর এর পক্ষ থেকে ইহরাম এবং ইহরাম ব্যাগ, পাসপোর্ট ব্যাগসহ অন্যান্য হজ্ব সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

উল্লেখ্যঃ চট্টগ্রাম শহরে আল ওয়াক্বিয়া একমাত্র বিজ্ঞ ও অভিজ্ঞ ওলামায়ে কেরাম নির্দেশিত হজ্ব কাফেলা। যেখানে চট্টগ্রামের বিভিন্ন বড় বড় জামিয়ার মুফতি ও মুহাদ্দিসগণ প্রশিক্ষক বা মুয়াল্লিম হিসেবে হজ্বের তত্ত্বাবধান করে থাকেন।