সিলেটে ইলমী প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান সম্পন্ন

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

ফেব্রুয়ারি ০২ ২০১৯, ১৯:৩৯

সিলেটের স্বনামধন্য দুটি প্রতিষ্ঠান মারকাযুল হিদায়া সিলেট ও জামি’আতুল উলূম আশ শারইয়্যাহ সিলেটের যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে ব্যতিক্রমী “ইলমী প্রতিযোগিতা”। তরজমাতুল কুরআন, হিফযুল হাদীস, আরবী মাকালা, আরবী বক্তব্য ও মাসাইলে নাহু- এই ৫টি বিষয়ে ছিলো প্রতিযোগিতা। প্রায় ৪০০ (চারশত) প্রতিযোগী এতে অংশগ্রহণ করেন। ৩১ জানুয়ারি ও ১ম ফেব্রুয়ারি দুই দিনে অনুষ্ঠিত হয় এ প্রতিযোগিতা।

গতকাল শনিবার দুপুর ২টা থেকে শুরু হয় পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। এতে পুরস্কার হিসেবে প্রতি বিষয়ে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অর্জনকারীকে প্রদান করা হয় যথাক্রমে নগদ ৭০০০/-, ৫০০০/- এবং ৩০০০/- টাকা করে। এছাড়াও প্রতি বিষয়ে পরবর্তী ১০ জনকে দেওয়া হয় ৫০০/- টাকা সমমূল্যের কিতাব।

অনুষ্ঠানে অালোচকবৃন্দ এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগের জন্য আয়োজকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, সিলেট বিভাগে এমন আয়োজন প্রথম। এ আয়োজন ছাত্রদেরকে ইলম চর্চার ক্ষেত্রে আরও অগ্রসর করবে। সাথে সাথে আয়োজকগণ এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করার জন্য আহ্বান জানান।

উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, মারকাযুল হিদায়া সিলেটের মহাপরিচালক মাওলানা ইমদাদুর রহমান আল মাদানী। তিনি প্রতিযোগিতায় প্রতি সকলের উচ্ছ্বাস আগ্রহ দেখে মুগ্ধতা প্রকাশ করেন এবং সামনেও যেনো এই ধারাবাহিকতা বজায় থাকে এজন্য সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাওলানা শরীফ মুহাম্মদ বলেন, সকল বিষয়ে, বিশেষকরে তালিবে ইলমদের ইলমী উন্নতির পথে অন্যতম বাধা হলো হীনম্মন্যতা। এটা দূর করে তালিবুল ইলমকে সামনে অগ্রসর হতে হবে।

তিনি আরো বলেন, যে কোন একটি বিষয়ে তাখাসসুস তথা বিশেষজ্ঞতা অর্জন করা কাম্য। চাই সে বিষয়টি যতই ছোট্ট হোক না কেন।

আয়োজকবৃন্দের পক্ষ থেকে এ মুসাবাকার উদ্দেশ্য নিয়ে আলোচনা করেন জামি’আতুল উলূম আশ শারইয়্যাহ সিলেটের পরিচালক মুফতি আবু মুহাম্মদ ইয়াহইয়া হাফিজাহুল্লাহ।
তিনি বলেন, আমাদের এ আয়োজনের উদ্দেশ্য হলো, সিলেটের প্রতিটি মাদরাসায় ইলম ও আরবি ভাষার চর্চা নতুন উদ্যমে আবারো শুরু হওয়াই আমাদের লক্ষ্য।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন আরবী সাহিত্যের প্রবাদপুরুষ মাওলানা সফিউল্লাহ ফুআদ, জামেয়া কাসিমুল উলূম দরগাহ শাহজালাল রাহ. সিলেটের শায়খুল হাদীস আল্লামা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালীম বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা আবদুল বছীর, মাওলানা আতাউর রহমান কোম্পানীগঞ্জী, মাওলানা জুনায়েদ কিয়ামপুরী, জামেয়া মাদানিয়া শেখবাড়ির ভাইস প্রিন্সিপাল মাওলানা আহমদ আফজাল বর্ণভী, মারকাযু শারইয়্যাহ ঢাকার পরিচালক মুফতি মুহাম্মদ হারুন, মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল্লাহ, মাওলানা এহতেশাম কাসিমী, মুফতি নূরুযযামান সাঈদ, মাওলানা মুশতাক আহমদ চৌধুরী, মাওলানা আবদুর রহমান কফিল, মাওলানা আশরাফ হোসাইন ফুআদী প্রমুখ।