সাংবাদিক কনক সারওয়ারের কন্টেন্ট সরিয়ে নিতে হাইকোর্টের আদেশ

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

ডিসেম্বর ০৮ ২০২০, ২০:৪৫

ইতিহাস বিকৃত করার অভিযোগে ইউটিউবসহ অন্যান্য ডিজিটাল মাধ্যম থেকে প্রবাসী সাংবাদিক ড. কনক সারওয়ারের কন্টেন্ট সরিয়ে নেয়ার আদেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে চলতি বছরের ১৭ই নভেম্বর হাইকোর্টে একটি পিটিশন দায়ের করেছিলেন আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হক। মঙ্গলবার সেই পিটিশন আবেদনের শুনানিতে এই নির্দেশ দেয়া হয়।

এ বিষয়ে আইনজীবী মঞ্জুরুল হক বলেন, কন্টেন্ট সরিয়ে নেয়ার বিষয়ে আদালত একটি মৌখিক নির্দেশনা দিয়েছেন। খুব শিগগিরই এটি সই হয়ে আদেশ আকারে আসবে।

কবে নাগাদ কন্টেন্ট সরিয়ে নিতে হবে এমন প্রশ্নে মি. হক বলেন, হাইকোর্ট এগুলো অনতিবিলম্বে সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

সম্প্রতি বাংলাদেশের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে একাধিক সাবেক সেনা কর্মকর্তার সাক্ষাৎকার গ্রহণ করে কন্টেন্ট তৈরি করে সেগুলো ইউটিউব ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন প্রবাসী সাংবাদিক কনক সারওয়ার।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার বলেন, পিটিশন আবেদনে বলা হয়েছে যে, কনক সারওয়ারের বিভিন্ন কন্টেন্টে ইতিহাস বিকৃত হচ্ছে এবং একটি বিশেষ লিংকের মাধ্যমে সেটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ছড়িয়ে পড়ছে।

“বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি কে ছিলেন, প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি কে ছিলেন এগুলো নিয়ে উনি ভুল তথ্য পরিবেশন করছেন। এজন্য ভবিষ্যতের ইতিহাস বিকৃতি হচ্ছে।”

এলডিপি নেতা কর্নেল অলি আহমেদের সাথে সাক্ষাৎকার নিয়ে যে কন্টেন্টটি তৈরি করা হয়েছে এক্ষেত্রে সেটি বিশেষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

কর্নেল অলি আহমেদ একজন সাবেক সেনা কর্মকর্তার পাশাপাশি একজন রাজনীতিবিদ।

২০০৬ সালে বিএনপি থেকে বেরিয়ে গিয়ে তিনি লিবেরাল ডেমোক্রেটিক পার্টি নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন।

পিটিশনের পক্ষের আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হক বলেন, গত ১৭ই আগস্ট কনক সারোয়ারের ইউটিউব প্ল্যাটফর্মে সাবেক সেনা কর্মকর্তা কর্নেল অলি আহমেদের একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশ করা হয়। যেখানে তিনি বলেন যে, বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান নয় বরং জিয়াউর রহমান ছিলেন। যা ইতিহাসের বিকৃতি।

এছাড়া কর্নেল অলি আহমেদের একটি বই রয়েছে রেভলিউশন, মিলিটারি পারসনেল এন্ড ওয়ার অব লিবারেশন ইন বাংলাদেশ নামে। যেখানে এ নিয়ে ভুল তথ্য রয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে শুধু বিটিআরসি নয়, বরং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নামও উল্লেখ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসী হিসেবে অবস্থান করছেন সাংবাদিক ড. কনক সারওয়ার। তার কনটেন্টগুলো নানা রকম প্রমাণ উপস্থাপনসহ সরকারের সমালোচনায় ভরপুর থাকে। (বিবিসি)