ভারতে নতুন নামে আত্মপ্রকাশ জেএমবির

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

সেপ্টেম্বর ২০ ২০২০, ১৩:২০

সশস্ত্র জঙ্গি সংগঠন (জামাতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ) জেএমবিকে ভারতের জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ) আল-কায়দার শাখা বলে দাবি করলেও বাংলাদেশ পুলিশের জঙ্গি-বিরোধী বাহিনীর তাতে আপত্তি রয়েছে।

বাংলাদেশের এই বাহিনীর এক কর্তার মতে, এক সময়ে এরা আল-কায়দার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও, এখন আইএস (ইসলামিক স্টেটস) জঙ্গিদের ভাবধারাকে অনুসরণের চেষ্টা করে।

তার মতে, কোনো আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গেই এদের তেমন যোগাযোগ নেই। জেএমবির এখনকার নেতৃত্ব আইএস নেতৃত্বের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও খুব সফল হয়েছে বলা যায় না। আইএস এক সময়ে আবু মহম্মদ আল বাঙালি নামে এক জঙ্গিকে ভারতীয় উপমহাদেশ শাখার প্রধান মনোনীত করে। কিন্তু অল্প দিনের মধ্যেই সেই জঙ্গি সিরিয়ায় নিহত হয়।

তবে ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশের মাটিতে মূলত মাদ্রাসার ছাত্রদের নিয়ে গঠিত জেএমবির সঙ্গে ২০২০ সালের জেএমবির অনেক ফারাক রয়েছে বলে জানাচ্ছেন বাংলাদেশের গোয়েন্দারা। সম্প্রতি ঢাকা ও আশপাশের এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা ৯ জন জেএমবি জঙ্গিকে জেরা করে তারা জেনেছেন, ভারতে তাদের সংগঠনটি প্রথমে জেএমবির একটি জেলা শাখা হিসেবে কাজ করলেও এখন পূর্ণাঙ্গ সংগঠন হিসেবে কাজ করছে। জেএমআই বা ‘জামাতুল মুজাহিদিন ইন্ডিয়া’ নামে তাকে ডাকা হচ্ছে।

শায়খ আবদুর রহমান এবং সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলা ভাইয়ের সঙ্গে জেএমবির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং দীর্ঘদিন সামরিক শাখার দায়িত্বে থাকা সালাউদ্দিন এখন জেএমবির ভারতীয় শাখা বা জেএমআইয়ের প্রধান। প্রথমে পশ্চিমবঙ্গ ও ঝাড়খণ্ডে সীমাবদ্ধ থাকলেও এখন কর্নাটক, তামিলনাড়ু, কেরল, অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলঙ্গানা ও উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন এলাকাতেও তাদের লোকজন ছড়িয়ে রয়েছে বলে খবর পেয়েছেন বাংলাদেশের গোয়েন্দারা।

যদিও বাংলাদেশের ওই গোয়েন্দা কর্তার মতে, সর্বত্র তাদের সংগঠন যে খুব পোক্ত, সে কথা বলা যায় না। রোহিঙ্গা মুসলিমেরা বৌদ্ধ অধ্যুষিত মায়ানমার সরকারের হাতে নির্যাতিত হওয়ার পরে জেএমবি ভারতের বুদ্ধগয়া এবং অন্য বৌদ্ধ ধর্মস্থানে হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছিল।

ভারতীয় গোয়েন্দারা যে তা ভেস্তে দিতে পেরেছেন, তার পিছনে তাদের কৃতিত্ব রয়েছে বলে জানান ঢাকার ওই গোয়েন্দা কর্তা। কারণ, জঙ্গিদের বিষয়ে নিয়মিত তাঁরা গোয়েন্দা তথ্য আদানপ্রদান করেন।