বাংলাদেশ শিক্ষা জাতীয়করণ পরিষদ গঠন সভাপতি আজাদ মহাসচিব সায়েদুজ্জামান

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

মে ০৫ ২০১৯, ২২:৪৫

দেশে বেসরকারী শিক্ষক-কমচারীদের বেতন বৈষম্য, অবহেলা, শিক্ষক লাঞ্ছনা, অতিরিক্ত কর্তন বন্ধে শিক্ষকদের দাবী আদায়ে শিক্ষক সংগঠনগুলি যখন ব্যর্থ ঠিক তখনই- বাংলাদেশ শিক্ষা জাতীয়করণ পরিষদ (বাশিজাপ)-নামে একটি নতুন শিক্ষক সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটে।

এই সংগঠনের ঘোষণা দেন সকলের প্রিয় মুখ, শিক্ষকবন্ধু,পরিচ্ছন্ন সাধারণ জীবনযাপনের অধিকারী, দাদু ভাই খ্যাত সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা-সভাপতি মোঃ অলি আজাদ ও মহাসচিব এ এইচ এম সায়েদুজ্জামান।

মোঃ অলি আজাদ গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার শাদেরগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়র দীর্ঘদিন যাবৎ প্রধান শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ইতোপূর্বে বিলকিস মোশাররফ বালিকা বিদ্যালয় দাউদকান্দি,কুমিল্লা’তে ইংরেজী বিষয়ে শিক্ষকতা করেছেন।

আর মহাসচিব ঢাকার ঐতিহ্যবাহী উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল এন্ড কলেজে গনিত শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতায় আছেন। এছাড়াও তাঁর হাতে গড়া শিক্ষাবার্তা ডট কম পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

সভাপতি তাঁর বক্তব্যে বলেন- স্বাধীনতার চেতনাকে ধারণ করে, অসাম্প্রদায়িক মূল্যবোধের ভিত্তিতে, শিক্ষক-কর্মচারীদের স্বার্থ সুরক্ষা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ সহ শিক্ষক-কর্মচারীদের সকল ধরনের বেতন বৈষম্য, অবহেলা, লাঞ্ছনা, বঞ্চনা, নিপীড়নের প্রতিবাদী কন্ঠস্বর হিসেবে এই সংগঠনটি কাজ করবে।

শিক্ষা জাতীয়করণ হলে শিক্ষার্থী-শিক্ষক-অভিভাবক তথা জনগণ -প্রশাসন-সরকার সকলেই লাভবান বা উপকৃত হবে। অামরা অাশা করি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলি যেভাবে গুটিয়ে নিয়েছেন অর্থাৎ সরকারী করেছেন ঠিক তেমনিভাবে সাহসিকতার সাথে এখন মাধ্যমিক স্তর(দ্বাদশ শ্রেণি) জাতীয়করণ করে চিরস্মরণীয় অবদান রাখবেন এবং অতিরিক্ত ৪% কর্তন বন্ধ করে শিক্ষক-কর্মচারীদের অাজীবন পেনশনের অাওতায় অানবেন।

অামাদের যথাযথ বাড়ীভাড়া দিয়ে সরকারী নিয়মে বদলি’র ব্যাবস্থা করবেন। দু’টি পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা, চিকিৎসা ভাতা দিবেন এবং যেহেতু অামরা অন্যের সন্তানদের জন্য নিবেদিত অামাদের সন্তানদের পড়াশুনার জন্য শিক্ষাভাতা চালু করবেন। শিক্ষকতা পেশাকে ভালবেসে যেন নতুন-মেধাবী প্রজন্ম শিক্ষকতায় অাসে সেজন্য অাকর্ষণীয় বেতন-ভাতা দিতে হবে। “শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ”-এই স্লোগানকে সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করতে হলে এবং শিক্ষার মানোন্নয়নে জাতীয়করণের বিকল্প নাই। শিক্ষাক্ষেত্রে অাগামী প্রজন্মের পথ প্রশস্ত করতে অামাদের প্রচেষ্টা নিরন্তর অব্যাহত থাকবে, ইনশায়াল্লাহ্।

মহাসচিব তাঁর বক্তব্যে বলেন-যেখানে শিক্ষক-কর্মচারী-শিক্ষার্থী-অভিভাবক নির্যাতিত হবে সেখানেই সংগঠনটি তার পাশে দাড়াবে। দেশে শিক্ষক-কর্মচারী যেভাবে নির্যাতিত হয় তাদের পাশে কেউ দাঁড়ানো তো দূরের কথা কেউ টু শব্দও করে না। আমরা সকল অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকবো এটাই আমাদের অঙ্গীকার।

ইতোমধ্যে আমাদের ২১ জেলায় কমিটি গঠন সম্পন্ন হয়েছে। বাকী জেলাগুলোতে কাজ চলছে। যারা সংগঠনটির সাথে কাজ করতে ইচ্ছুক যোগাযোগ করুন- ♥মো. অলি আজাদ, প্রতিষ্ঠাতা-সভাপতি,
হট লাইন-০১৯১২৬৬৯৫৪৬ এবং ♥এ এইচ এম সায়েদুজ্জামান, মহাসচিব, মোবাইলঃ০১৯৯১-৯৯২২২২।