ঢাকা সিটি নির্বাচন; ইভিএম নিয়ে প্রার্থীদের ভিন্নমত

একুশে জার্নাল ডটকম

একুশে জার্নাল ডটকম

জানুয়ারি ১৭ ২০২০, ১১:২৯

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইভিএমে ভোট চায় না ইশরাক, রাজনৈতিক কৌশলের কারণে ইভিএমে বিএনপির বিরোধিতা দাবি তাপসের।

ইভিএমে ভোটগ্রহণ নিয়ে পাল্টাপাল্টি অবস্থানের কথা জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দুই মেয়র প্রার্থী- শেখ ফজলে নূর তাপস ও ইশরাক হোসেন। ধানের শীষের প্রার্থীর সন্দেহ- ইভিএমে পাল্টে ফেলা সম্ভব জনরায়। প্রতিপক্ষের এই সন্দেহকে রাজনৈতিক কৌশল অভিহিত করে নৌকার প্রার্থী বলছেন, ইভিএমে ভোট দিতে অসুবিধা হবে না জনগণের।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মধ্যে কেবল ওয়ারি, গেন্ডারিয়া, সূত্রাপুর, কোতোয়ালি ও বংশালের একাংশের ভোটারদের ইভিএমে ভোট দেয়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে। বাকি সব এলাকার বাসিন্দাদের কাছেই ইভিএম নতুন।

৩০শে জানুয়ারি ভোটের মধ্য দিয়ে ইভিএম-অনভিজ্ঞতা কাটতে যাচ্ছে প্রার্থী-ভোটারের। তবে তার আগেই নতুন এই প্রযুক্তি নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন অবস্থান নৌকা ও ধানের শীষের প্রার্থীর।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন বলেন, এখানে অবশ্যই কারচুপির সুযোগ রয়েছে। আমরা মনে করছি যে এটিকে বিশেষভাবে প্রোগ্রাম করা হবে, যাতে করে নির্বাচনের ফলাফল নির্ধারিত সময়ের পর পাল্টে যায়।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, আমার মনে হয় তারাও চায় ইভিএমে ভোট হোক, তাই তারা উলটো কথা বলছে। এই জিনিস ঢাকাবাসী সাদরে গ্রহণ করবে।

ইভিএম-বিরোধী হলেও নির্বাচনি প্রচারে খামতি নেই বিএনপি প্রার্থীর। গণসংযোগের সপ্তম দিনে যাত্রাবাড়ি, ডেমরা, কদমতলীবাসীর মনজয়ে ব্যস্ত ছিলেন ইশরাক। এ সময় দুর্নীতির মামলায় বিচার শুরু হওয়া নিয়ে তিনি বলেন- ভুয়া মামলা দিয়ে তাকে রাজনৈতিকভাবে হেয় করার ষড়যন্ত্র করছে সরকার।

বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন বলেন, এই মামলাকে বারবার বলা হচ্ছে দুর্নীতি মামলা কিন্তু এখানে দুর্নীতির কিছুই হয়নি। আমাকে কমিশন থেকে সম্পদ বিবরনী দেয়ার জন্য নোটিশ দিয়েছিল কিন্তু আমি সময়ের অভাবে তার জবাব দিতে পারি নাই। এখানে দুর্নীতির কিছুই নেই।

ওদিকে পিলখানা, লালবাগ, নবাবগঞ্জ, আজিমপুরসহ পুরনো ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ব্যস্ত ছিলেন শেখ তাপস। অলি-গলি ঘুরে, বাসা-বাড়িতে গিয়ে উন্নত ঢাকা গড়তে নৌকায় ভোট চান নৌকার মাঝি। নির্বাচিত হলে নগরভবনকে দুর্নীতিমুক্ত করে ২৪ ঘণ্টাই জনগণকে সেবা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী।

আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, যে মৌলিক সেবাগুলো আছে সেগুলো ঢাকাবাসীকে নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ২৪ ঘন্টা কাজ করে যাবো।৯০ দিনের মধ্যেই আমাদের মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন হবে।

কথার লড়াই চললেও শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখবর নির্বাচনের প্রত্যাশা প্রার্থী-ভোটার সকলেরই।