ওসমানীনগরে গৃহবধূ নিখোঁজ, মায়ের জন্য শিশু আদিলের কান্না

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

এপ্রিল ১১ ২০২২, ১৫:৫৪

  1. আহমদ মালিক, ওসমানীনগর : সিলেটের ওসমানীনগরে দেড় মাস থেকে এক গৃহবধূ নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজ গৃহবধূ উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের খুর্শিদ আলীর পুত্র দিলোয়ার হোসেনের স্ত্রী রুবেনা বেগম (২৩)।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারী বিকালে বাড়ি থেকে বের হলে এক সন্তানের জননী রুবেনা বেগম আর বাড়িতে ফিরে আসেনি। পরে আশপাশ এলাকাসহ সম্ভব্য সকল আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে খুঁজ করেও তার কোন সন্ধান পায়নি পরিবার। এই ঘটনায় নিখোঁজের স্বামী ২৮ ফেব্রুয়ারী ওসমানীনগর থানায় সাধারণ ডায়রীর আবেদন করলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। পরে ১৭ মার্চ থানায় সাধারণ ডায়রী গ্রহন করে পুলিশ।
জানা গেছে, বিগত ৪ বছর পূর্বে দিলোয়ার হোসেনকে ভালবেসে বিয়ে করেন দৌলতপুর গ্রামের কলমদর আলীর মেয়ে রুবেনা বেগম। প্রথমে পরিবার বিয়ে না মানলেও পরে বিষয়টি মেনে নেন। রুবেনা বেগম ও দেলোয়ার দম্পতির আদিল হোসনে নামের ৩ তিন বছরের একটি শিশু রয়েছে। আস্তে আস্তে তাদের পরিবারে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকে। বিষয়টি শালিশ মিমাংসায়ও একাধিকবার সমাধান হয়েছে। মা নিখোঁজের পর থেকে শিশু আদিলও মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পরেছে।মায়ের জন্য প্রতিদিন কাদঁছে আদিল।
নিখোঁজের বড় ভাই নুরুল হক বলেন, আমার বোন নিখোঁজের পর আমরা সম্ভব্য সকল স্থানে খোঁজ করে তার সন্ধান না পেয়ে ৩ দিন পর বোনের স্বামীকে নিয়ে থানায় সাধারণ ডায়রীর আবেদন করলে পুলিশ বাড়িতে আসে পরে ২১দিন পর সাধারণ ডায়ীরী গ্রহন করে। আমি আমার বোনের সন্ধান চাই।
এই বিষয়ে নিখোঁজের স্বামী দিলোয়ার হোসেনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। স্থানীয় ইউপি সদস্য লেচু মিয়া বলেন, গৃহবধূ নিখোঁজের পর তার ভাই আমার কাছে এসে জানিয়েছেন পারিবারিক ঝগড়ার কারণে তার বোন বাড়ি থেকে চলে গেছে। তার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। একাধিকবার তাদের পারিবারিক কলহ আমি স্থানীয়দের নিয়ে মিমাংসা করে দিয়েছি। খবর পেয়েছি দেলোয়ার নাকি তার স্ত্রীকে নির্যাতন করতো।
এই বিষয়ে ওসমানীনগর থানার এস আই সুপ্রিয় নন্দি বলেন, এখনো গৃহবধূর কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। থানা পুলিশ তদন্ত করছে।