এক ফসলা বৃষ্টিতেই বাহুবলের প্রধান সড়ক প্লাবিত; প্রয়োজন সংস্কার এবং ড্রেনেজ ব্যবস্থা

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

সেপ্টেম্বর ১১ ২০২০, ১২:২৬

শাহ মোহাম্মদ দুলাল আহমেদ বাহুবল (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার প্রধান সড়ক এক ফসলা বৃষ্টিতেই প্লাবিত হয়ে যায়। মুসলধারে নয় ঝিরিঝিরি বৃষ্টিতেই মাত্র দুই কিলোমিটার দূরত্বের জনবহুল সড়ক বৃষ্টির পানিতে ভেসে একাকার হয়ে যায়। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়,উপজেলার প্রধান সড়কটি বাগানবাড়ির ঢাকা–সিলেট মহাসড়কের লিংক হয়ে জাংগালিয়া হাসপাতাল,বাহুবল উপজেলা প্রশাসনের কার্যালয়,বাহুবল বাজার,হামিদনগর,চলিতাবাড়ি নামক স্থানে গিয়ে মহাসড়কে যুক্ত হয়েছে।

দুই কিলোমিটার দূরত্বের সড়কটি প্রায় দশবছর যাবত সংস্কার না হওয়ায়,সড়কের গুরুত্বপূর্ণ একাধিক স্থানে ভাঙ্গনের দেখা দিয়েছে।পুরো সড়ক বৃষ্টির পানিতে খানাখন্দে ভরে গেছে। উপজেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি অবহেলায় পরে আছে দীর্ঘদিন যাবত।নেই প্রয়োজনীয় সংস্কার,নেই সু পরিকল্পিত পানি নিস্কাশনের স্থায়ী ব্যবস্থা!

এ সড়কে উপজেলার সকল শ্রেনীপেশার মানুষ চলাচলের পাশাপাশি,প্রায় ১৫ টি সরকারি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র–ছাত্রী যাতায়াত করছে প্রতিনিয়ত। এ সড়কে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অংশে পানি জমে থাকার ফলে,পিছ ঢালা ভেঙে গেছে। পুরো সড়ক জুড়েই কাঁদা আর ভাঙ্গনের ফলে ছাত্র– ছাত্রীসহ মানুষ সাধারণের চলাচলে ঘটছে বিঘ্নতা ভোগান্তি।

সরেজমিনে দেখা যায়,মাজিদিয়া মহিলা মাদ্রাসা এবং গ্রীণপার্ক স্কুল এন্ড কলেজের প্রবেশের মুখে দেখা দিয়েছে সড়কে ভাঙ্গন। আইডিয়াল কিন্ডারগার্টেন স্কুলের সামনে ভাঙ্গন,ক্যাম্ব্রিজ স্কুল এন্ড কলেজের সামনে ভাঙ্গন,হামিদিয়া হলিসাইল্ড একাডেমির সামনে ভাঙ্গন, বাহুবল মধ্যবাজারে ভাঙ্গন,হাসপাতাল সড়কের সামন সহ প্রায় পুরো সড়কই ভেঙ্গে একাকার হয়ে গেছে।
বাহুবল বাজারের এক ব্যবসায়ী ক্ষোভ প্রকাশ করে জানায়,বাহুবল উপজেলায় হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হয়,উপজেলার লক্ষাধিক মানুষের আমাদের গুরুত্বপূর্ণ সড়কটার আর উন্নয়ন হইল না!

প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কের দেড় কিলোমিটার দু–পাশে বৃষ্টির পানিসহ অন্যান্য পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করতে সড়কের দু”পাশে ড্রেনেজ ব্যবস্থা দাবী জানিয়েছে উপজেলার সর্বসাধারণ। এছাড়া উপজেলার ব্যস্ততম এ সড়কটি দ্রত একটি সম্প্রসারিত মডেল সড়কের দাবী জানিয়েছেন বাহুবল উপজেলাবাসী।

এ রাস্তার সংস্কার বিষয়ে স্থানীয় সরকার অধিদপ্তরের প্রকৌশলী (বদলিপ্রাপ্ত) ইঞ্জিনিয়ার আনিসুর রহমান নিকট জানতে চাইলে,তিনি জানান এ সড়কের প্রয়োজনীয় সব কিছু ডিপিপি তে জমা দেয়া আছে। অল্প কিছু দিনের ডিপিপি কর্তৃক অনুমোদন হলেই বাহুবলের প্রধান সড়কের সংস্কার সহ প্রয়োজনীয় উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করা হবে।