করোনা সাইড এফেক্ট ও ইসলামের নৈতিক শিক্ষা

সোয়ালেহীন করিম চৌধুরী

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “নিজের জন্য যা পছন্দ করে তা অন্যের জন্য পছন্দ না করা পর্যন্ত তোমাদের কেউ পরিপূর্ণ ঈমানদার হতে পারবে না।”

আফসোস হয় আল্লাহ পাক ও রাসুল সাঃ এর শিক্ষাগুলো থেকে আমরা কতই না দূরে। লন্ডনের একটি সুপারস্টোরে কাজ করার সুবাদে করোনা ভাইরাসে আতঙ্কিত লোকজনের কাছ থেকে দেখা কিছু ঘটনার কথা আপনাদের সাথে শেয়ার করছি।

ঘটনা ১ – যুক্তরাজ্যে লং লাইফ খাবারের সাথে সাথে গত কয়দিনে প্যারাসিটামল ঔষধ এক দুষ্প্রাপ্য বস্তুতে পরিণত হয়েছে। আমাদের স্টোরের সর্বশেষ প্যারাসিটামল এক শেতাঙ্গ মহিলা হাতে নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়েছেন। ইতোমধ্যে এক বৃদ্ধ ভদ্রলোক কাউন্টারে এসে আমাদের কাউন্টার এসিস্ট্যান্টকে প্যারাসিটামল বেক স্টকে আছে কিনা জিজ্ঞেস করে না সূচক জবাব পেয়ে মন খারাপ করে চলে যাচ্ছিলেন। ইতোমধ্যে শ্বেতাঙ্গ মহিলা উনার প্যাকেট কিনে দ্রুত ভদ্রলোকের কাছে গিয়ে উনার প্যাকেট থেকে এক পাতা ভদ্রলোকের হাতে দিয়ে জিজ্ঞেস করলেন এতে চলবে কিনা। ভদ্রলোক সেই এক পাতা নিয়েই কৃতজ্ঞ চিত্তে ফিরে গেলেন।

ঘটনা ২ – একজন মুসলিম মহিলা এসেছেন দুধ কিনতে। হাতে তুলে নিয়েছেন তিনটি দুধের বোতল। আমাদের স্টোর ম্যানেজার উনাকে বুঝানোর চেষ্টা করছেন যে উদ্ভূত পরিস্থিতির আলোকে নতুন পলিসি অনুযায়ী কেউ দুটার বেশী প্রডাক্ট কিনতে পারবে না। কিন্তু কিছুতেই বুঝাতে সক্ষম না হয়ে আমার শরণাপন্ন হলেন। কিন্তু যখন দেখলেন আমিও বুঝাতে পারছি না তখন হাল ছেড়ে দিয়ে বললেন “Let her take three.”

ঘটনা ৩ – কিছু কিছু প্রডাক্টের ব্যাপক চাহিদার কারণে আমরা তার সব ডিসপ্লে করছি না। তার মাঝে একটি হলো ডিম। এক বৃদ্ধ শ্বেতাঙ্গ মহিলা আমাকে এসে জিজ্ঞেস করলেন “Do you work here?” আমি হ্যাঁ সূচক জবাব দেয়ায় আবার জিজ্ঞেস করলেন “Have you got any egg available.” আমি জানতাম কলিগরা নিজেরা কিনবে বলে কিছু ডিম সরিয়ে রেখেছিলো। আমার বৃদ্ধার প্রতি মায়া হলো। তাই “I might do” বলে ভিতর থেকে ডিম এনে মহিলার হাতে দিলাম। মহিলা কৃতজ্ঞতার হাসি হেসে আমাকে বারবার জিজ্ঞেস করছিলেন, “Are you sure its not for you?” আমি হেসে বললাম It is ok.

উপরে ঘটে যাওয়া এই ঘটনাগুলো আমাকে বারবার মনে করিয়ে দিচ্ছিলো মানবতার প্রকৃত শিক্ষা ইসলাম আমাদেরকে দিলেও তার চর্চা আমরা কতোজন করি। আমরা মুসলমান হয়েছি ঠিকই কিন্তু প্রকৃত ঈমানদার কি হতে পেরেছি। অথছ যাদের অন্তরে ঈমান নেই তারাই চর্চা করছে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা। করোনা ভাইরাস বিশ্বজোড়ে ছড়িয়ে পড়ায় আমরা যেখানে আল্লাহর কাছে ফিরে যাওয়ার কথা, মানবতার উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করার কথা সেখানে আমরা স্বার্থপরতায় একজন আরেকজনকে ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়েছি।

আজ যারা চাল, ডাল, তেল, টিস্যু পেপার মজুদ করার প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়েছি তারাই কি আনসার সাহাবীর উত্তরসুরি যিনি হিজরত করে আসা মুহাজির ভাই আব্দুর রহমান ইবনে আউফকে উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন, হে দ্বীনি ভাই আজ থেকে আমার সকল সহায় সম্বল দুই ভাগ করে দিলাম এর অর্ধেকের মালিক আপনি। আমরা কি সেসব যোদ্ধার উত্তরসুরি যারা যুদ্ধের ময়দানে আহত অবস্থায় পানির জন্য প্রচন্ড তৃষ্ণার্ত হয়েও অপরজনকে প্রাধান্য দিতে গিয়ে একে একে সবাই শহীদ হোন।

অথবা যেসব মুসলমান ব্যবসায়ীরা উম্মাহর খারাপ সময়ের সুযোগে মজুতদারি করছেন অথবা নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের অহেতুক মূল্য বৃদ্ধি করছেন তারা কি সেই সাহাবীর উত্তরসুরি যিনি মদীনার গলিতে ব্যবসা করতে গিয়ে দিনে উনার প্রয়োজনীয় বিক্রি হয়ে পড়ার পর ব্যবসা বন্ধ করে দিতেন। কাস্টমার আসলে তিনি প্রতিবেশী দোকানগুলোতে যাওয়ার জন্য বলতেন। এতে ক্রেতা যখন উনাকে প্রশ্ন করলো আপনার দোকানে জিনিস থাকার পরও কেনো আপনি বিক্রি না করে প্রতিবেশী ইহুদী দোকানে যাওয়ার জন্য বলছেন। উত্তরে তিনি বলেন, আজকের জন্য আমার প্রয়োজনীয় ব্যবসা হয়ে গেছে কিন্তু প্রতিবেশী ইহুদী ব্যবসায়ী আজ তেমন ভালো ব্যবসা করতে পারে নি। সেখানে জিনিসের মূল্য এবং মান একই। ঐ বেচারার পরিবার আছে তাই আপনারা দয়া করে সেখানেই যান। আজকের জন্য আমার রিযিকের ব্যবস্থা হয়ে গেছে আলহামদুলিল্লাহ।

এগুলোই হচ্ছে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা। নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছ থেকে নৈতিকতার শিক্ষা নিয়ে নিজেদের জীবণে তার যথার্থ বাস্তবায়ন সারা বিশ্বে তার সাথীরা ছড়িয়ে পড়েছিলেন বলেন ইসলাম এতো কম সময়ে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছিলো। আজ আমরা ভুলেই বসেছি যে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর ওপর ভরসা করে তার জন্য তিনিই যথেষ্ট।’ (সূরা ত্বালাক: ৩)

মুসলমানদের আখেরাতের জীবণ থেকে দুনিয়ার চাকচিক্যকে বেশী গুরুত্ব দেয়া ও ঈমানের দূর্বলতার কারণেই আজ বিশ্ব জোড়ে আমাদের এই অধঃপতন। আমি দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করি আল্লাহ ও রাসুল সাঃ এর প্রকৃত অনুসরণই উদ্ভূত সকল সমস্যার একমাত্র সমাধান। তাই শুধু এই প্রার্থনা করি যেনো আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদের সকলকে দ্বীনের প্রকৃত শিক্ষার আলোকে জীবণ গঠনের তওফীক দান করেন।

লেখক: সোয়ালেহীন করিম চৌধুরী। সাবেক সাধারণ সম্পাদক, যুক্তরাজ্য যুবদল