ইসলামী লেখকদের আদর্শের জায়গায় অবিচল থাকতে হবে

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

নভেম্বর ০৮ ২০১৯, ০৯:১৪

বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরামের আয়োজনে ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে তরুণদের জন্য লেখালেখির বুনিয়াদি কর্মশালা মিরপুরের মুসলিম বাজার জামিয়া ইমদাদিয়া দারুল উলুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) বেলা তিনটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত চলা এই কর্মশালায় মিরপুর অঞ্চলসহ রাজধানীর বিভিন্ন মাদরাসা থেকে দুই শতাধিক তরুণ অংশ নেন। সমাপনী অধিবেশনে লেখা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ১০ জনের হাতে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা।

কর্মশালার প্রধান অতিথি মাদরাসা দারুর রাশাদের প্রিন্সিপাল এবং সাইয়েদ আবুল হাসান আলী নদভী রহ.-এর খলিফা মাওলানা মুহাম্মাদ সালমান বলেন, আগামী দিনের কলমযুদ্ধের ময়দানে তরুণদের সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। বাতিলের বিরুদ্ধে তাদের কলম হতে হবে আরও বেশি শাণিত। তবে ইসলামী ধারার লেখকদের আদর্শের জায়গাটিতে অবিচল থাকতে হবে। কোনো ক্রমেই এক্ষেত্রে ছাড় দেয়া যাবে না।

কর্মশালার প্রধান আলোচক ইসলাম টাইমস সম্পাদক মাওলানা শরীফ মুহাম্মদ বলেন, ইসলামী ধারার তরুণদের লেখালেখিতে এমন একটি জায়গায় পৌঁছাতে হবে যাতে সবাই তাদের সমীহ করতে বাধ্য হয়। এক্ষেত্রে আদর্শিক কোনো ছাড় দেয়া যাবে না। নিজ আদর্শ ও বিশ্বাসের ওপর অবিচল থেকে ইসলামি ধারার লেখকরা যেকোনো বিষয়ে লিখতে পারেন বলে মনে করেন বিশিষ্ট এই লেখক।

বিশেষ আলোচকের বক্তৃতায় বিশিষ্ট লেখক ও অনুবাদক মাওলানা ইয়াহইয়া ইউসুফ নদভী বলেন, সাহিত্যের বিপর্যয় একটি জাতির বিপর্যয়। জাতিকে এই বিপর্যয় থেকে রক্ষা করার দায়িত্ব আলেমদের। এজন্য লক্ষ্য স্থির করে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে ইসলামি ধারার তরুণ লেখকদের এগিয়ে যাওয়ার তাগিদ দেন তিনি।

কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন মুসলিম বাজার মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি আবদুল ওয়াহিদ কাসেমি। বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরামের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সাদ আবদুল্লাহ মামুনের পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন ফোরামের সভাপতি জহির উদ্দিন বাবর।

কর্মশালায় বিষয়ভিত্তিক আলোচনা করেন বার্তা টোয়েন্টিফোর ডটকমের বিভাগীয় সম্পাদক মুফতি এনায়েতুল্লাহ, ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মুনীরুল ইসলাম, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব গাজী মুহাম্মদ সানাউল্লাহ, বাংলা ভাষা ও বানান বিশেষজ্ঞ শেখ মুহিউদ্দীন।

আরও বক্তব্য দেন মুফতি আবদুল বারী, মিযানুর রহমান জামীল, হাসান আল মাহমুদ।

অনুষ্ঠান বাস্তবায়নে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন মুসলিম বাজার মাদরাসার নাজিমে তালিমাত মাওলানা শাহজাহান ফারুকী, শিক্ষক মাওলানা আবদুল্লাহ মিয়াজী, শামীম আহমদ ও ফয়জুল্লাহ ফাইয়াজ।

প্রসঙ্গত, ইসলামী ধারার তরুণ লেখকদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরামের উদ্যোগে রাজধানী ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে তরুণদের জন্য লেখালেখির বুনিয়াদি কর্মশালার আয়োজন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ঢাকা ও আশপাশে বেশ কয়েকটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। লেখালেখিতে ইচ্ছুক তরুণদের যোগ্য করে গড়ে তুলতে এ ধরনের আয়োজন আগামীতেও অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন ফোরামের দায়িত্বশীলেরা।