আমার দেখা এক সকালের সাদেক হোসেন খোকা

একুশে জার্নাল

একুশে জার্নাল

নভেম্বর ০৭ ২০১৯, ০০:৫৪

।। শরীফ মুহাম্মদ ।।

৯২-৯৩ সালের কথা। ওয়াপদা ভবন সংলগ্ন মতিঝিল মাদরাসায় ছিলাম। প্রায় প্রতিদিন ফজরের পর হাঁটতে বের হয়ে ইনকিলাব-ইত্তেফাক পত্রিকা অফিসের সামনে গিয়ে দাঁড়াতাম। দেয়ালে সাঁটানো থাকতো তাজা পত্রিকা। উৎসুক পত্রিকা-পাঠকদের ছোটখাটো একটা জটলা জমে যেত সেই ভোর সকালে। এর মধ্যেই ১০ মিনিট-১৫ মিনিট কেটে যেত।

এক সকালে কাঁধে শার্ট ঝুলানো গেঞ্জি গায়ে একটা লোক আমার সামনে দাঁড়িয়ে পত্রিকা পড়ছে। হাঁটতে হাঁটতে ঘেমে আসা পথচারী টাইপ মানুষ। আমি আর পত্রিকার মাঝখানে তিনি। আমার একটু ডিস্টার্বই হচ্ছে। পত্রিকার যে অংশে আমার চোখ এগিয়ে যায়, সেদিকটাতেই ওই লোকটি এগিয়ে গিয়ে দাঁড়ায়। মুশকিল! কয়েক মিনিট পর লোকটি ঘুরে দাঁড়ালেন, পত্রিকা পড়া শেষ তার, এখন চলে যাবেন। দেখলাম, আরে এতো সাদেক হোসেন খোকা।

তখন সম্ভবত তিনি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী, কোতোয়ালি সূত্রাপুরের এমপি। কাছেই গোপীবাগে তার বাসা। সরকারি বাসায় হয়তো তখনও উঠেননি, গোপীবাগেই থাকেন। গোপীবাগ, ব্রাদার্স ক্লাব, মহল্লা এসবের মায়া ছাড়তে পারেননি। ওই দিন সঙ্গী-সহচর কাউকে তার সঙ্গে দেখিনি। সকালে হাঁটতে বের হয়েছিলেন হয়তো। একাই ছিলেন। পায়ে স্পঞ্জের স্যান্ডেল। আর দশজন পথচারীর মতো দেয়ালে লাগানো পত্রিকা পড়া শেষে কাঁধে শার্টটা ঝুলিয়েই মহল্লার দিকে হাঁটতে শুরু করলেন।

এই আমার দেখা এক সকালের সাদেক হোসেন খোকা। আল্লাহ তাআলা তাকে ক্ষমা করুন।